ওপেন নিউজ
  • | |
  • cnbangladesh.com
    opennews.com.bd
    opennews.com.bd
    opennews.com.bd
    opennews.com.bd
opennews.com.bd

মতামত

এই দিনে তাঁর মৃত্যুর


Date : 05-06-17
Time : 1494103542

opennews.com.bd

 ওপেননিউজ # লেখক :সাধারণ সম্পাদক, শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টার স্মৃতি পরিষদ" ভালোবাসা দিয়ে নেতা-কর্মীদের আগলে রেখে যিনি অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলন-সংগ্রামে সব সময় অগ্রভাগে ছিলেন তিনিই আহসান উল্লাহ মাস্টার। তৃণমূল পর্যায় থেকে জাতীয় পর্যায় পর্যন্ত জনসেবায় থেকেছেন সবসময়।

জনপ্রতিনিধি, সমাজসেবক, শিক্ষক, শ্রমিক নেতা হিসেবে অন্যায়ের বিরুদ্ধে ন্যায়ের উচ্চারণে তিনি ছিলেন নির্ভীক। মাথা উঁচু করে ন্যায়ের পক্ষে কথা বলতেন সবসময়। রাজপথে তিনি আগলে রেখেছেন কর্মীদের। পুুলিশের লাঠি মাথায় নিয়ে নেতা-কর্মীদের রক্ষা করতেন সবসময়। অধিকার প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে রাজপথে থেকে আহত হয়ে তিনি হাসপাতালে গেছেন কয়েকবার। একজন শিক্ষক, একজন চেয়ারম্যান ও সংসদ সদস্য হিসেবে এলাকার উন্নয়ন এবং সন্ত্রাসমুক্ত সমাজ গঠনে ও শান্তি -শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠায় তিনি যে ভূমিকা রেখে গেছেন, তা যুগে যুগে স্মরণীয় হয়ে থাকবে সর্বমহলে। কোনো অন্যায়কারীকে তিনি সহ্য করতেন না। সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে তিনি ছিলেন এক বলিষ্ঠ কণ্ঠ। সন্ত্রাস দমনে তিনি ছিলেন এক সাহসী বীর। নিজ হাতে ডাকাত ধরে পুলিশে দিয়েছেন কয়েকবার। এলাকাকে ডাকাতমুক্ত করতে তিনি বিশেষভাবে এলাকাবাসীকে অনুপ্রাণিত করেছেন। শান্তি শৃঙ্খলা  প্রতিষ্ঠায় তিনি এলাকাবাসীকে নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ে সভা-সমাবেশ এবং বৈঠক করতেন সব সময়। অনেকে বলে থাকেন আহসান উল্লাহ মাস্টারের জনপ্রিয়তা ও সাহসী ভূমিকাই ছিল তার মৃত্যুর কারণ। ১৯৯২ সালে উপজেলা চেয়ারম্যান সমিতির আহ্বায়ক হিসেবে তিনি উপজেলা পদ্ধতির পক্ষে সারাদেশে আন্দোলন গড়ে তোলার কারণে গ্রেফতার হন এবং পরে আদালতের মাধ্যমে জামিনে মুক্তিলাভ করেন। এছাড়া বিভিন্ন সময় রাজপথে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে অংশ নিতে গিয়ে নির্যাতনের শিকার ও আহত হন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে যাবার আগে তিনি পাকবাহিনীর হাতে আটক ও নির্যাতিত হন। আহত অবস্থায় তিনি মুক্তিযুদ্ধে যান এবং সক্রিয়ভাবে সম্মুখ যুদ্ধে অংশ নেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা আহসান উল্লাহ মাস্টার দেশ-মাতৃকাকে পরাধীনতার শৃঙ্খলমুক্ত করতে সম্মুখ সমরেই শুধু অংশগ্রহণ করেননি; সদ্য স্বাধীন জাতির পুনর্গঠন কাজসহ দেশপ্রেমের মহান আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে শিক্ষা ও শিক্ষা প্রশাসনের উন্নয়ন এবং প্রায় প্রতিটি উন্নয়ন ধারায় সক্রিয় অবদান রেখেছেন।

স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশে আহসান উল্লাহ মাস্টারসহ কমপক্ষে ১০ জন বীর মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সদস্য সন্ত্রাসীদের হাতে নিহত হন। আহসান উল্লাহ মাস্টারের হত্যাকাণ্ডের পর জাতীয় সংসদে সর্বসম্মত শোক প্রস্তাবে হত্যাকারীদের যথাযথ শাস্তি দেওয়া হবে বলে আলোচনাকালে সবদলের রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ প্রতিশ্রুতি দিয়ে ছিলেন। তত্কালীন বিএনপি জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, এমপিসহ সবাই বলেছিলেন, আহসান উল্লাহ মাস্টারের হত্যাকারী যেই হোক তাকে যথাযথ শাস্তি পেতেই হবে।

মাননীয় আদালত হত্যা মামলার এক বছরের মধ্যে ২০০৫ সালের ১৬ এপ্রিল দ্রুত বিচার আইনে মামলার প্রধান আসামি বিএনপি নেতা হাসান উদ্দীন সরকারের ছোট ভাই নূরুল ইসলাম সরকারসহ ২২ জনের ফাঁসি ও ছয় জনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড প্রদান করেন।

পরে আসামি পক্ষ এ রায়ের বিপক্ষে হাইকোর্টে আপিল করেন। পরে ২০১৬ সালের ১৫ জুন আসামিদের ডেথ রেফারেন্স, জেল আপিল ও আবেদনের ওপর শুনানি শেষে বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি কৃষ্ণা দেবনাথের হাইকোর্ট বেঞ্চ  আহসান উল্লাহ মাস্টার হত্যা মামলার  রায় দেন। 

শহীদ আহসান উল্লাহ মাস্টারের বাবা শাহ সূফি পীর সাহেব আবদুল কাদের পাঠান ইতোমধ্যে প্রয়াত হয়েছেন। বৃদ্ধ মাতা বেগম রোসমেতুননেসা কবরের পাশে বসে গত ১৩ বছর যাবত্ মামলার ফাঁসির রায় কার্যকর দেখতে চোখের জলে বুক ভাসান। তাঁর মৃত্যুর এই দিনে দেশবাসী অবিলম্বে রায়ের দ্রুত বাস্তবায়ন চায়।
 
 


 




মতামত



























সম্পাদক মণ্ডলীর সভাপতিঃ এনামুল হক শাহিন
প্রধান সম্পাদকঃ সিমা ঘোষ
সম্পাদকঃ নরেশ চন্দ্র ঘোষ

ঠিকানাঃ
২৩/৩ (৪ তালা), তোপখানা রোড, ঢাকা-১০০০
ফোনঃ ০২৯৫৬৭২৪৫, ০১৯৭৭৭৬৮৮১১
বার্তা কক্ষঃ ফাক্সঃ ০২৯৫৬৭২৪৫, ০১৬৭৬২০১০৩০
অফিসঃ ০১৭৯৮৭৫৩৭৪৪,
Email: editoropennews@gmail.com



ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকঃ নুরে খোদা মঞ্জু
ব্যাবস্থাপনা সম্পাদকঃ গাউসুল আজম বিপু
বার্তা সম্পাদকঃ জসীম মেহেদী
আইটি সম্পাদকঃ সাইয়িদুজ্জামান